হতদরিদ্র মানুষের সংখ্যায় বিশ্বে বাংলাদেশ ষষ্ঠ, ভারত প্রথম

বিশ্বে অতি গরিব মানুষের সংখ্যা বেশি এমন দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ষষ্ঠ। এ দেশের ২ কোটি ২৯ লাখ হতদরিদ্র মানুষ আছেন। বিশ্বে সবচেয়ে বেশি ২৮ কোটি ৪৬ লাখ হতদরিদ্র মানুষ রয়েছেন ভারতে।

বিশ্বব্যাংকের ‘প্রভার্টি অ্যান্ড শেয়ার প্রসপারিটি ২০২০ : রিভসলস অব ফরচুন বা দারিদ্র্য ও সমৃদ্ধির অংশীদার : ভাগ্য বিপর্যয়’ শীর্ষক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। দৈনিক ১ দশমিক ৯০ মার্কিন ডলার আয় হলেই সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে দারিদ্র্যসীমার বাইরে বা হতদরিদ্র বলে থাকে বিশ্বব্যাংক।

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, হতদরিদ্র মানুষের সংখ্যায় বিশ্বে দ্বিতীয় অবস্থানের রয়েছে নাইজেরিয়া। দেশটিতে ৭ কোটি ৭৫ লাখ মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাস করেন। তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে কঙ্গো। দেশটিতে ৫ কোটি ৩৩ লাখ মানুষ হতদরিদ্র। ৩ কোটি ৩৮ লাখ হতদরিদ্র মানুষ নিয়ে চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে ইথিওপিয়া। তানজানিয়ার ২ কোটি ৭৮ লাখ মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাস করেন। দেশটির অবস্থান পঞ্চম।

বিশ্বব্যাংকের মতে, কোভিড-১৯ মহামারী, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বাংলাদেশের অর্ধেক মানুষই দারিদ্র্যঝুঁকির মধ্যে রয়েছেন। এ দেশে দারিদ্র্যের হার সাড়ে ১৪ শতাংশে নেমে এসেছে। তবে উচ্চ দারিদ্র্যের হার কমানোর ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অগ্রগতি অর্জনে প্রশংসা করেছে বিশ্বব্যাংক।
বিশ্বব্যাংক বলছে, বাংলাদেশের ২৫ লাখ নিম্ন ও মাঝারি মানের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এগুলো মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) প্রায় ২০ শতাংশ অবদান রাখছে। এপ্রিলে করোনার ধাক্কায় টিকে থাকতে এসব ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের জন্য সরকার ভর্তুকি সুদে ২৩০ কোটি ডলার প্রণোদনা দিয়েছে। রফতানি আয়ের প্রধান উৎস তৈরি পোশাক খাতেও সরকার স্বল্প সুদে প্রণোদনা দিয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দারিদ্র্যবিমোচনে বাংলাদেশের সাফল্য কোনোভাবে খাটো করে দেখার উপায় নেই। ১৯৭৩-৭৪ সালে বাংলাদেশের সাড়ে ৮২ শতাংশই মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করত। হতদরিদ্রের হার ছিল ৪৮ শতাংশ। বর্তমানে এ হার সাড়ে ১৪ শতাংশে নেমে এসেছে।

বিশ্বব্যাংক বলছে, গত ২৫ বছরে বিশ্বে শত কোটি মানুষ দারিদ্র্য জয় করেছেন। দারিদ্র্যের হার নেমে এসেছে ১০ শতাংশে। কোভিড-১৯ মহামারী, জলবায়ু পরিবর্তন ও বিভিন্ন দেশে যুদ্ধের কারণে ২০৩০ সালে বিশ্বে দারিদ্র্যের হার ৩ শতাংশ কমানোর লক্ষ্য চরম হুমকিতে পড়েছে। এ অবস্থায় কিছু অঞ্চলে দারিদ্র্য বৃদ্ধির প্রবণতা ভাবনার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সাব-সাহারান আফ্রিকা অঞ্চলের দেশগুলোতে দারিদ্র্যের হার বাড়ছে।

বিশ্বের ৭০ কোটির বেশি মানুষ এখনও দারিদ্র্যসীমার নিচে। বিশ্বব্যাপী দারিদ্র্যবিমোচনের গতিও কমে এসেছে। এ পরিস্থিতি অব্যাহত থাকলে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার (এসডিজি) আওতায় ২০৩০ সালের মধ্যে অতি দারিদ্র্য দূর করার লক্ষ্য পূরণে সংশয় প্রকাশ করেছে বিশ্বব্যাংক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *